in , , , , , ,

প্রিয়নবী মুহাম্মদ সা. স্মরণে ‘সোনালী সূর্যোদয়’ -আব্দুল্লাহ আল মামুর

হযরত মোহাম্মদ সা.

সাহিত্য ডেস্কঃ
তিমির আঁধারে নিমজ্জিত মরুর বুক
কান পাতলেই যেখানে শোনা যায়
জালিমের লুট করা সুখের মাতাল উল্লাস।
জুলুম, শোষণ ও নিষ্পেষণের যন্ত্রণায়
মজলুমের ঘোলাচোখে রক্ত অশ্রুর প্লাবন,
বুকে বেদনার জলোচ্ছ্বাস।

নিপীড়িত জনতার নীল দীর্ঘশ্বাস
লু হাওয়া হয়ে মাতম তোলে খোলা প্রান্তরে
গুমরে উঠা আর্তনাদ ঢেউ তুলে ইথারে ইথারে।
ব্যথিতের আহাজারির মাতম সইতে না পেরে
শব্দগুলোকে মায়া মাখিয়ে ফেরত দেয়
সারি সারি উঁচু উঁচু কঠিন পাহাড়।
প্রতিধ্বনিত হয়ে তা কেঁদে কেঁদে ফিরে
অন্তর থেকে অন্তর আর প্রান্তর থেকে প্রান্তরে।

আশরাফুল মাখলুকাতের অসহায় রোদনে
ব্যথায় চৌচির হয় পাহাড়ের পাষাণ, কেঁদে উঠে,
অশ্রু প্রবাহিত হয় অবিরাম মায়াময় নৈঃশব্দ্যে
লোকে আদর করে ঝর্ণা ডাকে তাকেই।

ওদিকে জলসা ঘরে চলে
হৈ হুল্লোড়ে স্বর্গসুখের আয়োজন।
মদ আর নারীর মাঝে ডুবে পৌরুষ খুঁজে ফিরে
জালিমশাহীর ক্রীতদাসের দল।
ভয় দেখিয়ে আমজনতার মুঠো মুঠো সুখ ছিনিয়ে বানানো জালিমের সিংহাসনে
তখন অট্টহাসিতে ফেটে পড়ে নব্য ফেরাউন।

মাটির উপরের জীবনের চেয়ে মাটির নিচের জীবনকে নিরাপদ আশ্রয় ভেবে মজলুম জনতা যখন হয়রান
তখনই আসমানে দেখা গেলো
টুকরো আলোর ঝলকানি।
তখনই তুমি এলে হে প্রিয়বন্ধু মুহাম্মদ (সা.)
আলো হয়ে, হয়ে নিপীড়িত হৃদয়ের প্রশান্তি ও মুক্তিদূত, আলোকিত জীবনের সন্ধানে মানুষ
সে আলো ধারণ করলো হৃদয়ে হৃদয়ে
মরু আঁধারের আলোর তৃষ্ণা মিটিয়ে
তার শুভ্র ও স্নিগ্ধ আভা ছড়িয়ে পড়লো
পথে পথে, প্রান্তরে প্রান্তরে,
সারা দিগন্তে জুড়ে বয়ে গেলো শান্তি সমীরণ।

জালিমশাহীর প্রাসাদে প্রাসাদে হলো বজ্রপাত।
মর্মভেদী বজ্র নিনাদে ধুলিসাৎ হলো
অত্যাচারী সুখ লুটেরাদের নীলনকশা।
পৃথিবী দেখলো এক জুলুম নিপীড়নমুক্ত,
ন্যায় ও সাম্য শান্তিতে ভরা
সোনালী সকালের সূর্যোদয়।

What do you think?

Shahin Alam

Written by Shahin Alam

Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Loading…

0

আলমগীর হোসেনকে জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় কমিটির কার্যকরী নির্বাহী সদস্য নির্বাচিত করায় জিএম কাদের ও জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলুর প্রতি আন্তরিক কৃতজ্ঞতা প্রকাশ

চাঁপাইনবাবগঞ্জে রাজশাহী রেঞ্জ ভলিবল টুর্নামেন্টে পাবনা জেলা পুলিশ দল চ্যাম্পিয়ন