in , ,

রাতের অন্ধকারে কৃষক লীগ নেতাকে নির্যাতন ও ভিডিও করে প্রচারের প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন

সংবাদ সম্মেলন

স্টাফ রিপোর্টারঃ
ঢাকা জেলা কৃষক লীগের যুগ্মসাধারণ সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম রাজকে নিয়ে একটি মানহানিকর ভিডিও যোগাযোগ মাধ্যমে প্রচার করছে একটি মহল।

এমনই বাস্তবতার পরিপ্রেক্ষিতে সিরাজুল ইসলাম রাজ, তার পরিবার ও কৃষক লীগ নেতাকর্মীরা একটি সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করেন। সংবাদ সম্মেলনে সিরাজুল ইসলাম রাজ বলেন, আমাকে সেই দিন রাত্রে পরিকল্পিতভাবে দুটো গাড়ি ধরে নিয়ে যায় চোখ বেঁধে। সারারাত আমার উপর নির্যাতন করে ভোররাতে এই অপমানজনক ঘটনার অবতারণা করা হয়। আমার কাছে টাকা দাবি করে মেরে ফেলার হুমকি দেওয়া হয়। আমার হাত-পা ভেঙে দেওয়ার পরে বাধ্য করা হয় এসব মানহানিকর কথা বলতে অথচ এমন কোনো ঘটনাই সেদিন ঘটেনি।
এসব প্রসঙ্গে সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত থাকা অন্যান্য কৃষক লীগ নেতারা বলেন, আমাদের নেতা সিরাজুল ইসলাম রাজ হচ্ছেন আমাদের আদর্শের প্রতীক, আমাদের রাজনীতির চলার পথে দিক-নির্দেশক। অথচ তাকে যদি প্রতিপক্ষ এমনভাবে আঘাত করে ঘায়েল করতে চাই তবে আমরাও নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি। বঙ্গবন্ধুর আদর্শের রাজনীতি করে আওয়ামী লীগের সরকার থাকতেও যদি আমাদের এরকম সংকটময় মুহূর্তে পড়তে হয় তবে আমরা কোথায় যাব। এজন্য বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কঠোর হস্তক্ষেপ কামনা করছি, যাতে করে কোনো বঙ্গবন্ধুর সৈনিককে আর কোন হাইব্রিড ও কাওয়ারা চোখ তুলে কথা বলার সাহস না পায়।

এদিকে সিরাজুল ইসলাম রাজের ভাই শরিফুল ইসলাম বলেন, গণধোলাই কাকে বলে? জনরোষের মাধ্যমে যখন অনেক জনগণ কোন একজন মানুষকে মারে তখন সেটাকে গণধোলাই বলে অথচ আমার ভাইকে যে মারা হচ্ছে, কারা মারছে কিসের জন্য মারছে, তাই দেখা বা বুঝা যাচ্ছে না। এটা যদি গনধোলায় হতো, তবে গণমানুষকে ভিডিওতে দেখে যাওয়ার কথা ছিল অথচ যারা মেরেছে তারা কাপুরুষের মত নিজেকে আড়াল করে মেরেছে। তাই আমি চ্যালেঞ্জ দিয়ে বলতে চাই – যে ন্যাক্কারজনক ঘটনা আমার ভাইয়ের নামে প্রচার করা হচ্ছে, তা পুরো মিথ্যা ও ভিত্তিহীন।

তাই এমন মানহানিকর ভিত্তিহীন সংবাদ প্রচার ও সন্ত্রাসী কায়দায় কৃষকলীগ নেতা সিরাজুল ইসলাম রাজের উপর যে অত্যাচার হয়েছে, তার বিরুদ্ধে সিরাজুল ইসলাম রাজ সহ তার নেতাকর্মী ও পরিবার, আত্মীয়-স্বজনেরা তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে এবং তারা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর প্রতি অনুরোধ জানিয়েছেন বিষয়টির প্রতি নজর দিয়ে অন্যায়কারীদের দ্রুত শাস্তির আওতায় আনার জন্য।

What do you think?

-1 points
Upvote Downvote
Shahin Alam

Written by Shahin Alam

Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Loading…

0

ভোলাহাটে ওষুধের দোকানে অগ্নিকান্ড ১৫ লাখ টাকার মালামাল পুড়ে ভস্মীভূত

হেলাল উদ্দিনের কবিতা “মায়াবিনী”